প্রচ্ছদ

গোলাপগঞ্জে পেয়াঁজের বাজারে আগুন

26 October 2019, 17:53

গোলাপগঞ্জের ডাক

গোলাপগঞ্জঃ  গোলাপগঞ্জে পেয়াঁজের বাজারে আগুন লেগেছে আবারও। প্রতিদিন ৫-৭ টাকা মূল্য বাড়ছে প্রতি কেজিতে। গত সপ্তাহে কিছুটা হ্রাস পেলেও আবারও পেঁয়াজ বাজার সেঞ্চুরি করেছে। এতে করে দিনমজুর ও হতদরিদ্র মানুষজন পড়েছেন বিপাকে। তবে ব্যবসায়ীদের দাবী- সিলেট আড়ৎ থেকে চড়া দামে ক্রয় করে অল্প লাভে বিক্রিয় করছি। তাদের এমন দাবীকে অজুহাত দেখিয়ে ক্রেতারা বলেন, পাইকারী অনেক কম হলেও খুচরা বিক্রয় হচ্ছে অধিক লাভে। এজন্য ব্যবসায়ীদের দোষারূপ করেছেন অনেকেই।
বর্তমান সরকারের উদ্যোগে তিনটি দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানীর খবর দেশে ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষ অনেকটা স্বস্তি পেয়েছিলেন। সপ্তাহখানেকের মধ্যে মূল্য হ্রাস পাবে। কিন্তু সেই আশা এখন নিরাশায় পরিণত হয়েছে উপজেলাবাসীর মধ্যে। কোন ভাবেই পেয়াঁজের বাজার মূল্য কমছে না, উল্টো দু’এক দিনের ব্যবধানে ৫/৭ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে গোলাপগঞ্জ প্রধান প্রধান বাজার গুলোতে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১১৫ থেকে ১২০ টাকায় প্রতিকেজি। গ্রামীন মুদিদোকানে বিক্রি হয় তারও বেশী দামে।

বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানাযায়, গত সপ্তাহে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৮৫-৯০ টাকায় বিক্রিয় হলেও অল্পে দিনের ব্যবধানে বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ৩০ টাকা। গোলাপগঞ্জ পৌর এলাকার প্রধান উত্তর বাজারের জোবায়ের স্টোর, আখলিছ স্টোর, সেবুল স্টোর, মনসুর স্টোর, খালেদ ভেলাইটিজ স্টোর গুলোসহ পুরো বাজারে একই দামে বিক্রিয় হচ্ছে প্রতি কেজি পেঁয়াজ।

প্রতিদিন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসাদী ক্রয় করতে আসা ক্রেতারা জানান, বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানী করা হচ্ছে। তবে গোলাপগঞ্জে কমছে না পেঁয়াজের মূল্য। এসময় অনেকেই বাজারের ব্যবসায়ীদের দায়ী করে বলেন, যদি পেঁয়াজ আমদানী হয়ে থাকে, তাহলে মুল্য হ্রাস না পেয়ে বৃদ্ধি পাবে কেন? এমন প্রশ্নের উত্তর জানা নেই অনেকের।

এব্যাপারে বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপ করলে তারা জানান, সিলেটের আড়ৎ থেকে প্রতি পেঁয়াজ কিনতে হয় চড়া মুল্যে। অল্প লভ্যাংশ ধরে বিক্রি করি। সিলেটের প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ কিনতে হয় ১০৫ টাকায় ও বিদেশী পেঁয়াজ কিনতে হয় ১১০ টাকায়। আড়ৎদার জানান, বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানী নেই। যা আসছে চড়া দামে কেনা, সেভাবে বিক্রি করতে হয়। বিগত দিনে পেঁয়াজ বেশী দামে বিক্রির খবরে বাজার মনিটনিং করা হলে পেঁয়াজের দাম কিছুটা হ্রাস পেয়েছিল।

এব্যাপারে গোলাপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুনুর রহমান জানান, আমরা আবারও বাজার মনিটরিং করব। ব্যবসায়ীরা চড়া দামে বিক্রি করলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহন নেব।

  •  
  •  

সর্বশেষ খবর